২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০ ০৭:০৮ অপরাহ্ন

২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০ ০৭:০৮ অপরাহ্ন

স্পোর্টস ডেস্ক

অগাস্ট ২৭, ২০২০
১২:২৬ অপরাহ্ন


মেসির বার্সা ছাড়তে বাধা কী?


লিওনেল মেসির বার্সেলোনা ছাড়ার গুঞ্জন শুরু হয়েছিল চুক্তি নবায়ন করতে না চাওয়ার খবর স্প্যানিশ গণমাধ্যমে প্রকাশিত হওয়ার পর। সেটা গেল মাসের ঘটনা। সপ্তাহ দুয়েক আগে উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লীগের কোয়ার্টার ফাইনালে বায়ার্ন মিউনিখের কাছে কাতালানদের বিব্রতকর হারের পর তা জোরালো হয়। তবে জল্পনা-কল্পনাতেই সীমাবদ্ধ ছিল সবকিছু। অবশেষে আর্জেন্টাইন তারকা নিজেই ফাটালেন বোমা! ফ্যাক্সের মাধ্যমে বার্সেলোনা কর্তৃপক্ষকে ক্লাব ছাড়ার ইচ্ছার কথা জানিয়েছেন মেসি। তবে তার প্রস্থানের ক্ষেত্রে রয়েছে কিছু বাধা। বার্সার সঙ্গে তার চুক্তিতে বিশেষ শর্তের কার্যকারিতা, রিলিজ ক্লজ ও বেতন- এই তিন বিষয়কে উল্লেখ করেছে স্প্যানিশ গণমাধ্যম এএস। বিশেষ শর্ত বার্সেলোনার সঙ্গে আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ড লিওনেল মেসির চুক্তির মেয়াদ রয়েছে ২০২১ সালের জুন পর্যন্ত। এই চুক্তিতে জুড়ে দেওয়া আছে বিশেষ একটি শর্ত- চাইলেই প্রতি মৌসুমের শেষে বিনামূল্যে ন্যু ক্যাম্প ছাড়তে পারবেন তিনি। তবে শর্ত কার্যকর করতে হলে ক্লাব কর্তৃপক্ষকে একটি নির্দিষ্ট সময়ের আগে নিজের সিদ্ধান্ত জানিয়ে দিতে হবে রেকর্ড ছয়বারের ব্যালন ডি’অর জয়ী তারকার। বার্সা বোর্ড অবশ্য দাবি করেছে, চুক্তির ওই শর্ত অনুসারে গেল ১০ই মে’র মধ্যে মেসিকে তার সিদ্ধান্তের কথা জানাতে হতো। তখন বিনামূল্যে তাকে ক্লাব ছাড়ার সুযোগ দেওয়া হতো। কিন্তু আরও অনেক আগেই পেরিয়ে গেছে সেই সময়। তাই চুক্তির ওই ধারা এখন আর কার্যকর হবে না। তবে মেসি ও তার আইনজীবীরা মনে করছেন, বৈশ্বিক মহামারি করোনাভাইরাসের কারণে ইউরোপিয়ান ফুটবলের ২০১৯-২০ মৌসুম স্বাভাবিকের চেয়ে দীর্ঘায়িত হয়েছে। তাই বিশেষ শর্তটির মেয়াদও বাড়বে। অর্থাৎ আগামী ৩১শে আগস্ট পর্যন্ত তা কার্যকর করা যাবে। আর মেসি যেহেতু এই সময়ের আগেই তার ইচ্ছার কথা জানিয়েছেন, সেহেতু বার্সা ছাড়তে তার কোনো বাধা নেই। রিলিজ ক্লজ মেসির রিলিজ ক্লজ ৭০০ মিলিয়ন (৭০ কোটি) ইউরো। অর্থাৎ বার্সেলোনার ইচ্ছার বাইরে কোনো ক্লাব তাকে দলে নিতে চাইলে এই পরিমাণ অর্থ কাতালান দলটিকে দিতে হবে তাদের। কিন্তু বর্তমান চুক্তির মেয়াদের আর মাত্র এক বছর বাকি থাকায়, আগামী ২০২১ সালের জুনের পর তাকে বিনামূল্যে নিতে পারবে যেকোনো ক্লাব। তাই ক্যারিয়ারের শেষ দিকে পৌঁছে যাওয়া মেসির পেছনে বিশাল পরিমাণ অর্থ বিনিয়োগ কেউ করবে কিনা, তা নিয়ে সংশয় থাকছে। বেতন