০৩ ডিসেম্বর ২০২০ ০৭:১৩ অপরাহ্ন

০৩ ডিসেম্বর ২০২০ ০৭:১৩ অপরাহ্ন

নন্দিত ডেস্ক

অক্টোবর ২৬, ২০২০
১০:৪১ অপরাহ্ন


ইরফান সেলিমের ১ বছর কারাদণ্ড


ঢাকা-কা-৭ আসনের আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য (এমপি) হাজী সেলিমের ছেলে ইরফান সেলিম ও তার দেহরক্ষী জাহিদুল ইসলামকে এক বছর করে কারাদণ্ড দিয়েছে র‌্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালত। বিপুল ওয়াকিটকিসহ সেগুলো নিয়ন্ত্রণের যন্ত্র, লাইসেন্সবিহীন অস্ত্র, বিদেশি মদ, ইয়াবা উদ্ধারের পর র‌্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সারোয়ার আলম ছয় মাস করে তাদের দু'জনকে আলাদাভাবে একবছরের কারাদণ্ড দেন। এ ঘটনায় র‌্যাব তাদের বিরুদ্ধে অস্ত্র ও মাদক আইনের দুটি মামলা করবে। সোমবার (২৬ আগস্ট) সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার পর অভিযান শেষে র‌্যাবের মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক আশিক বিল্লা সংবাদ সম্মেলনে এসব জানান। আশিক বিল্লা বলেন, আটকের সময় মো. ইরফান সেলিমের কাছ থকে বিদেশি অস্ত্র এবং জাহিদুল ইসলামের কাছ

থেকে অস্ত্র ও চার শ পিস ইয়াবাসহ উদ্ধার করা হয়। রবিবার রাতে রাজধানীতে নৌবাহিনীর এক কর্মকর্তাকে মারধর ও হত্যাচেষ্টা মামলায় সোমবার দুপুরে ঢাকা-৭ আসনের আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য (এমপি) হাজী সেলিমের ছেলে ইরফান সেলিমসহ কয়েকজনকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব। হাজী সেলিমের বাসা থেকে তাদেরকে গ্রেপ্তার করা হয়। বিকেল সোয়া ৩টার দিকে বাসার সামনে র‌্যাবের এক ব্রিফিংয়ে মূল অভিযুক্ত ইরফান সেলিম এবং তার দেহরক্ষী জাহিদকে সাময়িক হেফাজতে নেয়ার কথা জানানো হয়। ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) ধানমন্ডি জোনের এডিসি আবদুল্লাহ হিল কাফি বলেন, হাজী সেলিমের বাসায় র‌্যাব অভিযান চালাচ্ছে। এরপর পুরান ঢাকার সোয়ারিঘাটের দেবদাস লেনে হাজী সেলিমের বাড়ি ঘেরাও করে অভিযান শুরু করে র‌্যাব। সাদা রঙের নয়তলা ওই ভবনের তৃতীয় ও চতুর্থ তলায় ইরফান সেলিম থাকেন জানিয়ে র‌্যাবের ম্যাজিস্ট্রেট সারওয়ার আলম বলেন, সেখানে একটি বিদেশি পিস্তল, গুলি, একটি এয়ারগান, ৩৭টি ওয়াকিটকি, একটি হাতকড়া এবং বিদেশি মদ ও বিয়ার পাওয়া গেছে। তিনি বলেন, আগ্নেয়াস্ত্রের কোনো লাইসেন্স নেই। আর ওয়াকিটকিগুলোও অবৈধ, কালো রঙের এসব ওয়াকিটকি শুধু আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা ব্যবহার করতে পারেন। এ ঘটনায় গ্রেপ্তার গাড়িচালক মীজানুর রহমানকে এক দিনের রিমান্ডে পাঠিয়েছে আদালত। সংবাদ সম্মেলনে আশিক বিল্লা জানান, তল্লাশী চালিয়ে র‌্যাব ৩৮-৪০টি অনুমোদনবিহীন ওয়াকিটকি পেয়েছে। এসব ওয়াকিটকি মূলত নিরাপত্তা বাহিনী ব্যবহার করে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে ইরফান সেলিম ব্যবসায়িক কাজে এসব ওয়াকিটকি ব্যবহার করে আসছিলেন বলে র‌্যাব জানায়। তবে আশিক বিল্লাহ বলেন, এলাকাবাসী জানিয়েছে এলাকায় চাঁদাবাজীসহ সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড পরিচালনায় ইরফান সেলিম এসব ওয়াকিটকি ব্যবহার করতেন। এ ছাড়া তিনটি অত্যাধুনিক ওয়াকিটকি এবং এসব নিয়ন্ত্রণের যন্ত্রপাতিও উদ্ধার করা হয়েছে ওই বাসা থেকে। র‌্যাব জানায়, অনুমোদনবিহীন এয়ারগান, গুলি, হাতকড়া, দশ ক্যান বিয়ার উদ্ধার করা হয়েছে। এসব সংরক্ষণের অপরাধে র‌্যাবের সারোয়ার আলমের ভ্রাম্যমাণ আদালত পৃথকভাবে দু'জনকে এক বছর করে কারাদণ্ড দেয়। র‌্যাব বাদী হয়ে অস্ত্র ও মাদক সংক্রান্ত দুটি মামলা করবে বলে জানায়। সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তারা জানায়, সুনির্দিষ্ট অভিযানের প্রেক্ষিতে এ অভিযান পরিচালিত হয়।