১৩ মে ২০২১ ০২:৪৫ পূর্বাহ্ন

১৩ মে ২০২১ ০২:৪৫ পূর্বাহ্ন

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

এপ্রিল ২৬, ২০২১
৪:৪৭ অপরাহ্ন


ঠাঁই নেই হাসপাতালে, কালোবাজারে আকাশচুম্বী দাম চিকিৎসা সামগ্রীর


হাসপাতালে ঠাঁই নেই। তাই রোগীদের ফেরত পাঠানো হচ্ছে। বাড়ি থেকেই চিকিৎসা নিতে বলা হচ্ছে। কিন্তু এতেও মারাত্মক সঙ্কট। সমস্যার কোনোই সমাধান হচ্ছে না। কারণ, বাড়িতে চিকিৎসা দিতে হলেও প্রয়োজন সেই অক্সিজেন সিলিন্ডার। তা যোগাড় করতে পরিবারগুলোকে গলদঘর্ম হতে হচ্ছে। অক্সিজেন সিলিন্ডার পাওয়া আর আকাশের চাঁদ হাতে পাওয়া সমান হয়ে গেছে।

যাওবা কোথাও সন্ধান মিলছে, তার দাম অস্বাভাবিক বেশি। একই অবস্থা কনসেনট্রেটর এবং অত্যাবশ্যকীয় ওষুধের। কালোবাজারে যা কিছু পাওয়া যাচ্ছে তা সাধারণ মানুষ স্পর্শ করতে পারছেন না। দিল্লি এবং ভারতের অনেক শহরে এ অবস্থা বিরাজ করছে। এ খবর দিয়েছে অনলাইন বিবিসি।


এতে বলা হয়েছে, রাজধানী দিল্লি এবং ভারতের অন্যান্য স্থানের বেশির ভাগ হাসপাতালের বেড রোগীতে পূর্ণ। এ অবস্থায় নতুন রোগী গেলে তাকে ফেরত পাঠাচ্ছে হাসপাতালগুলো। রোববার এমন অবস্থার শিকারে পরিণত হন অংশু প্রিয়া। তার শ্বশুরের অবস্থা ক্রমশ অবনতির দিকে যাচ্ছিল। এ সময় তিনি একটি অক্সিজেন সিলিন্ডার খুঁজে পেতে পুরোটা দিন ব্যয় করেন। দিল্লি বা নয়ডাতে কোনো হাসপাতালে একটিও বেড খুঁজে পাননি তিনি। দোকানে দোকানে একটি অক্সিজেন সিলিন্ডার খুঁজে ফিরেছেন। কিন্তু সব কিছুতেই তিনি ব্যর্থ হয়েছেন। বাধ্য হয়ে তাকে হাত বাড়াতে হয়েছে কালোবাজারে। তিনি ৫০ হাজার রুপি দিয়ে একটি অক্সিজেন সিলিন্ডার কিনতে সক্ষম হন। কিন্তু স্বাভাবিকভাবে এর দাম ৬ হাজার রুপি। অংশু প্রিয়ার শাশুড়ির অবস্থাও খারাপ। তিনি শ্বাসকষ্টে ভুগছেন। এখন তাকে নিয়েও উদ্বিগ্ন অংশু প্রিয়া। তিনি বলেছেন, শাশুড়ির জন্য কালোবাজার থেকে আরেকটি অক্সিজেন সিলিন্ডার কেনার মতো সামর্থ এখন আর নেই। এ অবস্থায় অক্সিজেন সিলিন্ডার সরবরাহ করে এমন কয়েকটি স্থানে যোগাযোগ করেন বিবিসির সাংবাদিক। তার কাছে স্বাভাবিক সময়ের চেয়ে কমপক্ষে ১০ গুন দাম বেশি চাওয়া হয়।