২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০ ০৬:০২ অপরাহ্ন

২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০ ০৬:০২ অপরাহ্ন

নন্দিত সিলেট

অগাস্ট ০২, ২০২০
৩:৩২ পূর্বাহ্ন


পর্তুগালের টরেস ভেদরাস আমিয়ালে ঈদুল আযহা উদযাপিত


যথাযোগ্য ধর্মীয় ভাবগম্বীর্যের মধ্যদিকে পর্তুগালে পবিত্র ঈদুল আযহা পালিত হয়েছে। শুক্রবার সকাল ৭ টায় টরেস ভেদরাস আমেয়াল খেলার মাঠে ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হয়।ঈদ জামাতে ইমামতি করেন হাফিজ ক্বারী  শাহ জাহান,ঈদের নামায শেষে মুসলিম উম্মাহর শান্তি এবং করোনা মুক্তির জন্য মহান রাব্বুল আলামিনের কাছে দোয়া প্রার্থনা করা হয়। এ ছাড়া ঈদের দিন সকালে স্বাস্থবিধি মেনে দেশটির বিভিন্ন স্থানে ঈদের নামায অনুষ্ঠিত হয়। লিজবনের সেন্ট্রাল মসজিদে সকাল ৭ টায় ঈদের প্রথম জামাত ও ৮ টায় দ্বিতীয় জামাত অনুষ্ঠিত হয়। শহরের অদিভিলাশে খোলা মাঠে ঈদের জামাত আয়োজন করে সেখানকার মুসলমানরা। স্থানীয় স্কুল মাঠে সকাল সাড়ে সাতটায় ঈদের জামাত হওয়ার কথা থাকলেও ব্যাপক লোকসমাগমের ফলে ঈদের জামাত শুরু হয় সকাল ৮ টায়। পর্তুগালের আরেক বড় শহর পর্তুতে হজরত বেলাল (রা:) মসজিদে দুইটি ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয় । দুইটি করে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয় লারেন্জাইরোতে মসজিদ আল মদিনা, মসজিদুল আল কাদরিয়াতে এবং সেতুবালের মসজিদ আঁত ত্বাকওয়াতে। তিনটি করে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয় মসজিদুল গৌছিয়া অদিভিলাশ এবং মসজিদে আবুবকর (রা:) দামাইয়াতে। একটি করে জামাত অনুষ্টিত হয় পর্তুগালের আরেক শহর কাসকাইস এবং সাকাবেইতে। পর্তুগালের সর্ব বৃহৎ ঈদের জামাত বাংলাদেশি অধ্যুষিত লিসবনের মাতৃ মনিজ পার্কের মাঠে অনুষ্ঠিত না হওয়াই বেশীরভাগ প্রবাসী বাংলাদেশীদের অনেকটাই সাদামাটাভাবে ঘরে এবং ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে ১০ জন করে ঈদের নামায আদায় করছেন। সেই সাথে করোনা মহামারি সঙ্কট ও পর্তুগালের পরবর্তী অর্থনৈতিক বিপর্যয়ে বেশিরভাগ প্রবাসী অর্থনৈতিক ও কর্মহীন হয়ে পড়ায় অন্যান্য বছরের মতো এবারের ঈদুল আযহায় ব্যস্ততাও দেখা যায়নি বাংলাদেশি অধ্যুষিত দোকান গুলোতে।